ঢাকায় থাকা-খাওয়ার খরচ ওয়াশিংটনের চাইতেও বেশি!

থাকা, খাওয়ার খরচের হিসাবে বাংলাদেশের রাজধানীর অবস্থান যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটনের উপরে। অর্থাৎ ওয়াশিংটনের চেয়েও ঢাকার থাকা-খাওয়ার খরচ বেশি। গবেষণা সংস্থা ‘মার্সা’র কস্ট অফ লিভিং সার্ভের ফলাফর এই তথ্য প্রকাশ করেছে। ওই তালিকার ৩৮ তম স্থানে রয়েছে ঢাকা।

ঢাকার পরের স্থান দখল করে আছে ওয়াশিংটন। তবে তালিকার শীর্ষ শহর হলো দিক্ষিণ-পশ্চিম আফ্রিকান দেশ অ্যাঙ্গোলার রাজধানী লুয়ান্ডা। তারপর হংকং। এই তালিকায় ভারতের সস্তা শহর নির্বাচিত হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের রাজধানী কলকাতা। আর বিশ্বের সবচেয়ে সস্তা শহর তিউনিসিয়ার রাজধানী তিউনিস।

বিশ্বের মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানিগুলোর কর্মীদের জীবনযাত্রার ব্যয় নিরুপণ করতে এই তালিকা প্রকাশ করে থাকে মার্সা। যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ককে ভিত্তি ধরে অন্যান্য শহরগুলোর জীবনযাত্রার ব্যয় হিসাব করে থাকে তারা। পাঁচটি মহাদেশের চার শতাধিক শহরের তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে তালিকা প্রকাশ করে থাকে। সেক্ষেত্রে অন্তত ২০০টি বিষয়ের তথ্য নেওয়া হয়ে থাকে। তার মধ্যে রয়েছে বাড়ি ভাড়া, পরিবহন ব্যয়, খাবার, পোষাক, গৃহসামগ্রীর দাম ও বিনোদন। মার্কিন ডলারের বিনিময় হারের উপর লক্ষ রেখে এসব বিবেচেনায় নিয়ে ওই তালিকা প্রকাশ করেছে মার্সা।

এবারে মার্সা তাদের ২৩ তম জরিপের ফলাফল প্রকাশ করেছে। শুধু মার্সার জরিপ নয়, যুক্তরাজ্যের জনপ্রিয় পত্রিকা দ্য ইকোনমিস্টের বিশ্বজুড়ে ১৩৩টি শহর নিয়ে চালানো এক জরিপেও বলা হয়েছে দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর।

ভারতের রাজধানী দিল্লি, চেন্নাই, বেঙ্গালুরু ও পাকিস্থানের করাচির চেয়েও ঢাকার জীবনযাত্রার খরচ বেশি। যানজট ও নাগরিক সুযোগ-সুবিধার দিক থেকে হতশ্রী অবস্থা বিরাজ করলেও ঢাকার বাসিন্দাদের দুনিয়ার অনেক ভালো শহরের চেয়েও বেশি ব্যয় করতে হয়।

লন্ডনভিত্তিক সংস্থা ইকোনমিক ইনটেলিজেন্স বলেছে, গত ১২ মাসে ঢাকার জীবনযাত্রার মান কমে এলেও এখনো তা দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন বড় শহরের চেয়ে বেশি ব্যয়বহুল। এমনকি তুরস্কের ইউরোপীয় শহর ইস্তাম্বুলের চেয়েও ব্যয়বহুল শহর ঢাকা।

জরিপকারী সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্বের সব থেকে ব্যয়বহুল শহরগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের ঢাকার অবস্থান ৭২। ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি, বেঙ্গালুরু ও চেন্নাইয়ের অবস্থান যথাক্রমে ১২৪, ১২৬ ও ১২৯তম স্থানে। আর পাকিস্থানের করাচি ১২৭ নম্বরে।

বিশ্বের বিভিন্ন শহরের প্রায় ১৬০ ধরনের পণ্য ও সেবার দামের তুলনা করে এ তালিকা করা হয়েছে। এসব পণ্য ও সেবার মধ্যে আছে খাবার ও পানীয়, পোশাক, বাড়িভাড়া, গৃহস্থালি পণ্য, প্রসাধনসামগ্রী, পরিবহন ব্যয়, স্কুল খরচ, ইউটিলিটি (পরিষেবা খাত) বিল, বিনোদন ইত্যাদি।

বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল শহর হিসেবে তালিকার শীর্ষে আছে সিঙ্গাপুর সিটি। এ ছাড়া শীর্ষ দলে জায়গা পাওয়া অন্য শহরগুলো হলো ফ্রান্সের প্যারিস, সুইজারল্যান্ডের জুরিখ, হংকং, নরওয়ের অসলো, সুইজারল্যান্ডের জেনেভা, দক্ষিণ কোরিয়ার সিউল, ডেনমার্কের কোপেনহেগেন, ইসরায়েলের তেলআবিব ও অস্ট্রেলিয়ার সিডনি।

ঢাকা এ মুহূর্তে বিশ্বের অন্যতম একটি মেগাসিটি। সে হিসেবে বিশ্বের ৭২তম ব্যয়বহুল নগরীর তকমা অস্বাভাবিক কিছু নয়। তবে যে মহানগরী মানুষের বসবাসের যোগ্যতা হারাচ্ছে, বিশ্বের অন্যতম অযোগ্য নগরী হিসেবে যার পরিচিতি গড়ে উঠেছে, সেখানকার জীবনমানের ব্যয়বাহুল্য কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

ঢাকার নগর জীবনের খরচের খাতগুলোয় যেসব অস্বাভাবিকতা রয়েছে, তাতে রাশ টেনে ধরার উদ্যোগ নিতে হবে।

0Shares